passion fruit, crop, agronomy

প্যাশন ফল কি

প্যাশন ফল মুলত ব্রাজিলিয়ান ফল। এটি নিউজিল্যান্ড, কেনিয়া, অস্ট্রেনিয়া সহ আরও কিছু এলাকায় বাণিজ্যিক ভাবে চাষ হয়। বাঙালীর কাছে এই ফল এখনও অপরিচিত। বাংলাদেশের কিছু পাহাড়ি এলাকায় এই ফল দেখা যায়। তবে আজ আমরা এই ফলের সমস্ত কিছুই জেনে নেব। কেন খাব? কোন ক্ষতিকর দিক আছে কিনা? উপকারিতা কি কি? সেসব নিয়েই থাকছে আজকের এই প্রতিবেদনঃ

বাংলাতে নামঃ প্যাশন ফল

ইংলিশ নামঃ Passion Fruits.

বৈজ্ঞানিক নামঃ Passiflora edulis

পরিবারঃ Passifloraceae.

passion, fruit, garden
passion fruit, fruit, plant

এই ফল এর বর্তমান ২ টি জাত দেখা যায়। ১। হলুদ এবং ২। বেগুনী। দেখতে আকর্ষণীয়, মনমুগ্ধকর, চকচকে এবং সুগন্ধিযুক্ত। অনেকটা দেখতে ঝুমকোলতার ফুলের মত। প্যাশন ফল কি….

ব্যাবহারঃ

এই ফল টি  ট্রপিকাল এবং সাবট্রপিকাল দেশে অত্যন্ত জনপ্রিয় ফল হিসেবে পরিচিত। তবে আমাদের দেশে মাত্রই এই ফল এর জনপ্রিয়তা বৃদ্ধি পাচ্ছে। এবং অপার এক সম্ভাবনময় অবস্থা তৈরি হতে যাচ্ছে। এই ফল দিয়ে অনেক কিছুই তৈরি করা যায়। যেমনঃ

  • শরবত
  • আইসক্রিম
  • জুস
  • জেলি
  • জ্যাম
  • আচার
  • বীজ থেকে তেল উৎপাদন ইত্যাদি।
mojito, passion fruit, drink
cake, tasty, yummy
passion fruit, food, wooden

পুষ্টি উপাদানঃ  

প্রতি ১০০ গ্রাম প্যাশন ফল এ আছেঃ-

  • টি এস এস ১০-১৪%
  • পানি ৮৫.১%
  • প্রোটিন ০.৭৩ %
  • ফ্যাট ০.২১ %
  • কার্বোহাইড্রেট ১৩.৩ %
  • অ্যাশ ০.৫২ %
  • ফসফরাস ২৫ %
  • আয়রন ০,৪৩ %
  • ক্যালসিয়াম ২৪.৩ %
  • নিয়াসিন ২.২১ %
  • ৭০০-২০০০ এ ইউ ক্যারোটিন
  • ভিটামিন ২০.১ % ক্যালোরি ৩৮৫.১ কিলোজুল। ইত্যাদি।

চাষাবাদঃ

প্যাশন ফল এর জন্য মুলত নিরপেক্ষ এলাকা উত্তম। অতিরিক্ত শীতল পরিবেশ এবং অতিরিক্ত গরম পরিবেশ কোনোটাই এটার জন্য ভালো নয়। নিরপেক্ষ এলাক্য এটি ভালো জন্মে। এবং বাণিজ্যিক ভাবে ফলন ভালো হয়। বীজ বা কলম করে এর রোপণ করা হয়। বাংলাদেশে যেমন করে লাউ বা কুমড়া মাচা করে চাষ করা হয় ঠিক সেভাবে এটিকেো চাষ করা যায়। এই ফল একবার চাষ করলে ৬/৭ বছর একটানা ফল দেয়। ৬/৭ বছর পর এর ফলন কমতে থাকে। প্যাশন ফল এর জাত দুইটি আগেই বলেছি। এর মধ্যে হলুদ জাতের ফলন বেগুনী জাতের তুলনায় বেশি। লাভজনক ব্যাবসা করতে চাইলে হলুদ জাত টাই শ্রেয়। প্রতি হেক্ট্রর এ প্রায় ৪০/৬০ টন ফল পাওয়া সম্ভব।

ফল সংগ্রহঃ

ফল পাকার পর এটি সাধারণত মাটিতে ঝরে পড়ে। তখন ই এটিকে সংগ্রহ করতে হয়।

ক্ষতিকর প্রভাবঃ

এটি আমাদের বাংলাদেশী মানুষ এর কাছে এখন ও অপরিচিত ফল। তাই অনেকে মনে করেন কোন ক্ষতিকর দিক থাকতেই পারে। অনেকে খেতে অনিচ্ছা প্রকাশ করেন। তবে আসলে এটির ক্ষতিকর দিক সম্পর্কে কোন ধারনা পাওয়া যায় না।

বাসার ছাদে লাভ জনকভাবে স্ট্রবেরী চাষ

shohozhut

Leave a Reply

Change Language